Monday, 12 June 2017 14:52

পোশাক খাতের নারী যৌন হয়রানি বন্ধে দরকার ক্ষমতায়ন

তৈরি পোশাক খাতের কারখানাগুলোতে নারী শ্রমিকদের যৌন হয়রানি বন্ধে কর্মক্ষেত্রে তাদের ক্ষমতায়ন করতে হবে বলে মত দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রের বিশিষ্টজনরা। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নারী শ্রমিকদের পর্যায়ক্রমে সুপারভাইজার ও ম্যানেজার পদে উন্নীত করতে বলেন তাঁরা। এটি করতে পারলে নারী-পুরুষ শ্রমিকের বৈষম্য কমে আসবে এবং কর্মক্ষত্রে নারীর হয়রানিও কমে আসবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

গতকাল রবিবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ‘তৈরি পোশাক খাতের নারী শ্রমিকদের জন্য সমতাপূর্ণ নিরাপদ কর্মপরিবেশ নিয়ে বহুপাক্ষিক প্রচারণা’ শীর্ষক আলোচনাসভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। করপোরেট সোশ্যাল রেসপনসিবিলিটির (সিএসআর) মাধ্যমে মালিকরা নারী শ্রমিকদের উন্নত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে পারেন বলে মন্তব্য করেন তাঁরা। 

গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইনসিডিন বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক শিল্প ঐক্য ফোরাম (বিজিডাব্লিউইউ) যৌথভাবে এ আলোচনা সভার আয়োজন করে। এতে সহযোগিতা করে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থানবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটির সদস্য মো. ইসরাফিল আলম। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইনসিডিন বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক এ কে এম মাসুদ আলী। অনুষ্ঠানে বক্তারা আরো বলেন, কর্মক্ষেত্রে নারী শ্রমিকদের অনেকে এখনো যৌন হয়রানির শিকার হয়। এ হয়রানি কমাতে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও কর্মক্ষেত্রে যৌন নিপীড়ন কমছে না। এমনকি আদালতের দেওয়া এই নির্দেশনা নিয়ে তৈরি পোশাক খাতের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ তাদের প্রায় তিন হাজার সদস্য কারখানার সঙ্গে আলোচনাও করে। তাই এ খাতসংশ্লিষ্টদের অভিমত, শুধু আলোচনার মাধ্যমে হয়রানি বন্ধ করা সম্ভব নয়। এ জন্য তাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে শক্তিশালী হতে হবে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইসরাফিল আলম বলেন, পোশাক খাতের মালিকরা ক্রমান্বয়ে শক্তিশালী হয়ে উঠছেন। তাঁরা চাইলেই তাঁদের সমস্যা নিয়ে সরকারের যে কারো সাক্ষাৎ লাভ করতে পারেন, কিন্তু শ্রমিকরা পারে না। তাই সংগঠিত এই শক্তির সঙ্গে আন্দোলন করতে হলে শ্রমিকদের আরো বেশি সংগঠিত হতে হবে।

তিনি শ্রমিক নেতাদের উদ্দেশে বলেন, দেশে এখন অনেক শ্রমিক সংগঠন আছে। আবার কেউ পূর্ব দিকে গেলে কেউ যায় পশ্চিমে। আলোচনাসভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ কলকারখানা অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিদর্শক ড. মো আনোয়ার উল্ল্যাহ, উত্তর আমেরিকার ক্রেতা জোটের সংগঠন অ্যালায়েন্স ফর ওয়ার্কার্স সেফটি ডিরেক্টর (অপারেশন) কামরুনেছা বাবলি, বিজিএমইএর সাবেক পরিচালক আরশাদ জামাল দিপু, বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক শিল্প ঐক্য ফোরামের সমন্বয়ক সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

Last modified on Wednesday, 12 July 2017 14:52